Breaking News
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
Home / National / বারী সিদ্দিকীর মেয়ে এলমা সিদ্দিকীর গান – সত্যি অসাধারণ ! (ভিডিও)

বারী সিদ্দিকীর মেয়ে এলমা সিদ্দিকীর গান – সত্যি অসাধারণ ! (ভিডিও)

আদিকাল থেকেই পুরুষতান্ত্রিক সমাজ নারীকে সংসারের গন্ডিতে আবদ্ধ করে গৌরবের সকল ক্ষেত্রে একাই আধিপত্য করে গেছে। বিশেষ করে প্রাচীন যুদ্ধকলায় যোগ্যতা, সামর্থ্য, বীরত্ব ছিল পৌরুষের অপর নাম। নারীদের নমনীয় শারীরিক গঠন ও সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে অধিকাংশ সময়ই তাদেরকে দুর্বল প্রতিপন্ন করা হয়। অথচ তলোয়ার চালানো বা তীর-ধনুকে লক্ষ্যভেদ করার কথা কল্পনা করতেই চোখের সামনে ভেসে উঠে ইতিহাসের বইয়ে দেখা কোনো বীরের ছবি। তারপরও যুগে যুগে এমন কিছু সাহসী নারীর আবির্ভাব ঘটেছে যারা সম্মুখ সমরে পরাজিত করেছেন বহু বীরকে। যাদের নেতৃত্ব তাক লাগিয়ে দিয়েছিল প্রাচীন বিশ্বকে। কালের স্রোতে তারা নিজেদের অমর করে রেখেছেন। অহংকারী পুরুষেরা অনেক সময় তাদেরকে হেয় করেছেন আর পরিণতিতে অবধারিতভাবেই পতন স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন। আজ তেমনই কয়েকজন দুর্ধর্ষ নারীর গল্প জেনে নেয়া যাক।জুডিথ ৯৬০ খ্রিস্টাব্দে দামোত নগরের শাসনকর্তা ছিলেন। তিনি প্যাগান (মতভেদে ইহুদি) ধর্মাবলম্বী ছিলেন। আমহারিক ভাষায় তাকে ‘এসাতো’ বলে ডাকা হয়, যার অর্থ আগুন। তিনি এক্সম নগর আক্রমণ করে ভয়ানক ধ্বংসযজ্ঞ চালান। এক্সম ছিল তৎকালীন ইথিওপিয়ার পবিত্র রাজধানী। জুডিথ একাধারে সব স্মৃতিসৌধ ও গীর্জা ধ্বংস করে এক্সম ও তার আশেপাশের এলাকায় ত্রাসের সৃষ্টি করেন। তিনি রাজবংশের সকল সদস্যকে (সেবার রানীর বংশধরদের) হত্যা করে তাদের সম্পূর্ণ চিহ্ন মুছে দিতে চেষ্টা করেন। তার কর্মকাণ্ড লোকমুখে বর্ণিত হয়ে আসছে এবং বিভিন্ন ঐতিহাসিক দলিলেও তার উল্লেখ রয়েছে। ধারণা করা হয়, তিনি সম্রাটকে হত্যা করে ক্ষমতায় বসেন এবং একটানা চল্লিশ বছর রাজত্ব করেন। উত্তর ইথিওপিয়ার কৃষক সম্প্রদায়ে এখনও তার নির্যাতন ও ইতিহাসের কিংবদন্তী প্রচলিত আছে। তিনি ইথিওপিয়ার রাজ কোষাগার ডেবরে ডেমো লুটপাট ও রাজার পুরুষ আত্মীয়দের জন্যে তৈরি জেলখানা ধ্বংস করেন বলে ধারণা করা হয়। জুডিথের বর্বরতা এমনই কিংবদন্তীর সৃষ্টি করে যে, আমহারিক ভাষায় সাধারণভাবে তার নামের অর্থ করা হয় ‘ধ্বংস’।ট্র্যু থি ত্রিন ৩য় শতকের একজন ভিয়েতনামী যোদ্ধা, যিনি চীনের দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ পরিচালনা করেন। তিনি ভিয়েতনামে ‘ঊ’ রাজত্বের সময় সফলভাবে দখলদার বাহিনীকে প্রতিরোধ করেন। তিনি থান হোয়া প্রদেশের ট্র্যু সন জেলায় জন্মগ্রহণ করেন (বর্তমানে উত্তর ভিয়েতনামে অবস্থিত)। তার জন্মের সময় এলাকাটি চীনের তিন রাজ্যের অন্যতম পূর্ব ঊ সাম্রাজ্য দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ছিল। খুব অল্প বয়সে এতিম হয়ে ত্রিন তার ভাই ও তার স্ত্রীর নিকট দাসীর ন্যায় বেড়ে উঠেন। মাত্র ২০ বছর বয়সে তিনি সেখান থেকে জঙ্গলে পালিয়ে যান। বাড়ি থেকে পালিয়ে প্রায় ১,০০০ পুরুষ ও নারী সৈনিকের মিলিত বাহিনী গড়ে তোলেন ত্রিন।

Check Also

যে দুটি কারনে অপুকে ডিভোর্স দিলেন শাকিব খান !!

একসময় ঢাকার ছবির দুই জনপ্রিয় মুখ ছিলেন অপু-শাকিব। কিন্তু সব কথা গোপন রেখেই একসাথে বিয়ের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *